Economic Benefits of Padma Multipurpose Bridge

English
বাংলা
Padma Multipurpose Bridge is the most prioritized fast track project among the ongoing mega projects in Bangladesh. This project will be the most significant infrastructure that will help with the socio-economic development of millions of people in the south-western part of the country. The Padma Multipurpose Bridge is ranked 122nd among other longest bridges globally, with pillars having a diameter of 3 meters in radius and pilling being 128 meters deep, which is the deepest piling in the world. The bridge’s construction started in 2014, and the last span of the 6.15 km long bridge was laid in December 2021 and is expected to be inaugurated for traffic by June 2022. The cost of this self-financed mega project in the country has been estimated at BDT 30,193.39 crore. By November 2021, 89 percent of the project had been completed. With the completion of the mega project, the GDP growth of the south-western part of the country will increase by 2.5 percent, while the country’s overall GDP growth will increase by 1.23 percent per annum. The Padma Multipurpose Bridge is a two-level steel truss bridge with a four-lane highway on the upper level and a single-track railway on the lower level, which will connect to The Padma Rail Link project. The Padma Rail Link project is expected to transform Bangladesh into a sub-route of the Trans-Asian Railway Network and contribute about 1 percent to the country’s GDP growth.

Overview of Padma Bridge



The Pre-Feasibility Study of the Padma Multi-purpose Bridge Project, the most important mega project of the Government of Bangladesh, was done from 1996 to 1999. According to a source in the Bangladesh Bridge Authority, the Japanese company JICA finalized the study between 2003 and 2005. Later on, between 2009 and 2011, the US, New Zealand, and Australia-based consultant organization Monsell-Ecom concluded the design of the Padma Multipurpose Bridge. However, when there was a crisis over the bridge’s funding, the Bangladesh government announced the construction of the Padma bridge with its own fund in 2013. In 2014, a deal to construct the main bridge was struck with China Major Bridge Engineering Co. Ltd., and Sinohydro Corporation Limited got the contract for river training work. The construction began in December of that year. The main bridge structure was being erected on 42 pillars with the help of 41 spans, spanning 150 meters that are expected to withstand earthquakes of magnitude nine on the Richter scale. Besides the four-lane road link at the top and a single line rail link at the bottom, the bridge will also take gas, electricity, and broadband internet through fiber optical cable to the country’s south-west. The bridge’s total length, including the main bridge and viaduct, is more than 9 kilometers.

In addition to the construction of more than 12 km of approach road for the main bridge, the project will acquire 1471 hectares of land on either side of the bridge and about 14 km of river training. Bangladesh Bridge Authority (BBA) oversees the overall work, including main bridge, river training, approach road on both sides, service area, and land acquisition. Initially, the Padma Bridge megaproject cost was estimated at BDT 10,161 crore in 2006 and BDT 20,506 crore in 2011, which later increased to BDT 30,793 crore. According to the Bangladesh Bridge Authority, more than 95 percent of the project’s main bridge has been completed by November 2021, and the work is expected to be completed by June 2022. In addition, a total of 212.05 km of the new railway line is being constructed for the Padma Bridge with the sponsorship of the Bangladesh Railway Ministry, which will connect Dhaka with the country’s largest land port, Jessore. The Chinese government will provide 85 percent of the financing of the 40,000 Crore project through China Exim Bank, and the Bangladesh government will provide the rest. Although several mega projects, like the Rooppur Nuclear Power Plant, are financially much larger than the Padma Bridge project, however the socio-economic, historical, and geopolitical significance of the Padma is far greater than others.

Impact of Padma Bridge



According to Zahid Hossain, lead economist at the World Bank, with the opening of road and rail traffic to the Padma Bridge, people in the country’s south-west will begin to benefit from the bridge immediately. By road, the distance between Dhaka and most of the south-western districts will be reduced to at least 100 km. In addition to reducing the time and cost of transporting passengers and goods, vehicle maintenance and fuel costs will be much lower. As a result, people from all sectors, including business and agriculture, will benefit, impacting the country’s GDP.

Communication & Transportation Benefits



According to the Asian Development Bank (ADB), 27% of the total population of Bangladesh lives in the south-west. The Padma river is a considerable obstacle while transporting anything from Bangladesh’s Barisal and Khulna to Dhaka. According to a BBC source, the existing roads have been further developed in addition to the construction of expressways on both sides of the Padma Bridge at the cost of BDT 11,000 crore. As a result, if the bridge is opened, the transportation there will increase more than 20 times. According to an ADB source, the Padma Bridge will carry an average of 24,000 vehicles per day in 2024 and 67,000 by 2050. In addition, the Padma Bridge will reduce the distance from Mongla Port to Dhaka by more than 100 km to only 170 km, whereas the current distance between Chittagong Port and Dhaka is about 264 km. As a result of the Padma Bridge, the distance between Dhaka’s Mongla seaport and Chittagong port will be reduced. Increasing the importance of the Mongla port in the transportation of goods and facilitating communication between Dhaka and the south will save a lot of working hours, which will further accelerate the growth of the country’s economy. In addition, according to ADB, the long-term (31 years) road user benefit of the Padma Bridge in the traffic model stood at 18.512 billion dollars, and according to the Social Accounting Matrix (SAM), the total project benefit was estimated at $25 billion (24.993) at the same time.

Trading



Trading across the country is likely to be further boosted after the opening of the Padma Bridge. Experts estimate an industrial revolution in 21 districts in the southwest, especially within a year of the double-decker bridge’s launch. It takes at least 2 to 3 days for a freight truck to travel from Barisal or Khulna to Dhaka or from Dhaka to these areas. After the bridge’s opening, this time will be reduced to a maximum of one day, which will increase the trading of the regions by several times. Also, according to a source in the Daily Star, once the Padma Bridge Rail Link project is completed, the distance from Dhaka to Kolkata via Jessore will be reduced to half, and it will take only 3 to 4 hours, which will also boost the country’s international trading. As a result, Bangladesh could become an important corridor in international trading. According to a report by the Khulna Chamber of Commerce, the region will play a groundbreaking role in regional connectivity in South Asia and connect Dhaka with Mongla and Payra ports once the Padma Bridge is launched. At present, more than 90 percent of the country’s international trade is done through the Chittagong Port. In 2021, the trade volume of this port was about 90 billion dollars. Initially, the port of Chittagong could handle 2 million TEU (Twenty-Foot Equivalent Unit) containers per year, but in 2021 it increased to more than 3.2 million TEU.

However, Until December 2021, less than 20(19,224) thousand containers were handled from Mongla, which is even less in the case of Payra port. In addition, after the launch of the bridge, besides easy commute, it will also reduce the cost of gas, electricity, and internet services, which will expand the existing trade in the region.

Regional Industrial Revolution



The Padma Bridge will significantly improve the economy of the country’s south-west region, an evident proof of which is the Bangabandhu Bridge, around which an industrial revolution has taken place in North Bengal. The changes in the economy of North Bengal as a result of this bridge have contributed about 2% to the GDP growth of Bangladesh. Such contribution has also been estimated in the case of Padma Bridge. According to many experts, the Padma Bridge’s contribution will be more than the Jamuna. Experts believe that many small and big industries will be growing in the south-western part of the country along the Padma Bridge route, including manufacturing businesses, RMG, assembling plants, storage facilities. According to ADB estimates, the direct investment made around this bridge will boost the regional economy. According to JICA estimates, a 10 percent reduction in travel time from Dhaka would increase the district economy to 5.5 percent, which would increase the region’s annual GDP growth by 1.7 percent. According to a Bangladesh News Agency, the bridge will be an important hub for many major sectors in the country’s south-west, including multinational communications, trade, tourism, and industry. In addition, economic activity in the south-west has already increased around the bridge, with mass-level industrialization underway. In this context, the rate of land sale in Barisal doubled in 2020 compared to 2019. Lands near highways are also being sold at three times higher prices than before. According to a light castle, there will be rapid growth of mega factories, hospitals, universities, housing industries, and small businesses around the Padma Bridge.

Socio-Economic Growth



According to a CPD source, the poverty rate in the Khulna-Barisal region is at least 10 percent higher than the national average. The construction of the Padma Bridge will reduce the poverty rate by 1.01 percent at the regional level and by 0.84 percent at the national level. Farmers in these areas are not getting a fair price for their crops due to expensive and time-consuming transportation systems. Once the bridge is completed, jute and fish from the Khulna division of Faridpur, along with agricultural products from Barisal, can be transported in the country and abroad quickly. As a result, farmers and producers will get better prices for their produce, which will increase their quality of life. According to a study by the World Bank, about 30 million people in Bangladesh will directly benefit from the Padma Bridge.

As a result of this bridge, communication, transportation, agriculture, industrialization, and employment will increase, which will improve the living standards of the people of this region. The country’s real estate sector in the south-west has also boosted around the Padma Bridge. As a result, it is expected that in the future people in this region will have access to gas, electricity and internet services at a lower cost than before. With the availability of broadband internet facilities, digitalization will be easier in these areas. There is a possibility of creating more jobs through freelancing, which will help enhance the socio-economic status of the people of the region. Being financially prosperous will improve the education system of the area as well as increase the cultural integration among the people on both sides of the Padma. According to a TBS source, employers will increase by about 1 million within the upcoming five years of the bridge’s opening, reaching 30 to 40 million in the next ten years. In addition, at the regional level, the government has taken several steps to create a skilled workforce. In addition to this, for a long time, the people of this region were almost deprived of the advanced medical services of Dhaka due to the poor transportation system. After the construction of the Padma Bridge and the development of communication systems, people from this region will be able to travel to Dhaka and receive advanced medical care quickly.

GDP Growth



The economic output of the transportation, trading, and regional industrial revolution centered on the Padma Bridge, along with the GDP growth, will impact the overall economy of the country. According to a Dhaka Tribune report, the launch of the Padma Multipurpose Bridge is expected to contribute about 1.3 to 2 percent per annum to the country’s GDP. At the same time, with the completion of the Padma Bridge Rail Link project, GDP will grow by another 1 percent. According to the current base year, a BRAC study estimates a 5 percent contribution to GDP in 31 years. However, once the bridge is completed, it will contribute 1.2 percent to the country’s GDP. According to the IMF forecast, Bangladesh ranks 20th in the world in ranking GDP growth in 2022. In 2026, Bangladesh will reach the 3rd position in this ranking, one of the contributors of which will be the Padma Bridge.

The Padma Bridge can no longer be called just a steel-built bridge. Still, it has become the center of Bangladesh’s ability, economic growth, and the emotion of the Bangladeshi Population. Mr. Robert Chatterton Dickson, the British High Commissioner to Bangladesh, described the Padma Bridge as Bangladesh’s “remarkable achievement.” The Government of Bangladesh announced the opening of the Padma Bridge in June 2022 and the opening of the Padma rail link from Dhaka to Bhanga in the same year on 16 December.

  Source: https://businessinspection.com.bd
পদ্মা বহুমুখী সেতু বাংলাদেশের চলমান মেগা প্রকল্পগুলির মধ্যে সবচেয়ে অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত ফাস্ট ট্র্যাক প্রকল্প। এই প্রকল্পটি হবে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অবকাঠামো যা দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের লক্ষ লক্ষ মানুষের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে সাহায্য করবে। পদ্মা বহুমুখী সেতু বিশ্বব্যাপী অন্যান্য দীর্ঘতম সেতুগুলির মধ্যে 122 তম স্থানে রয়েছে, যার স্তম্ভগুলির ব্যাসার্ধ 3 মিটার এবং পিলিংগুলি 128 মিটার গভীর, যা বিশ্বের গভীরতম পাইলিং। সেতুটির নির্মাণ শুরু হয় 2014 সালে, এবং 6.15 কিলোমিটার দীর্ঘ সেতুর শেষ স্প্যানটি 2021 সালের ডিসেম্বরে স্থাপন করা হয়েছিল এবং 2022 সালের জুনের মধ্যে যাতায়াতের জন্য উদ্বোধন করা হবে বলে আশা করা হচ্ছে। দেশে এই স্ব-অর্থায়নকৃত মেগা প্রকল্পের ব্যয় অনুমান করা হয়েছে 30,193.39 কোটি টাকা। 2021 সালের নভেম্বরের মধ্যে, প্রকল্পের 89 শতাংশ সম্পন্ন হয়েছে। মেগা প্রকল্পের কাজ শেষ হলে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের জিডিপি প্রবৃদ্ধি বাড়বে ২.৫ শতাংশ এবং দেশের সার্বিক জিডিপি প্রবৃদ্ধি বার্ষিক ১ দশমিক ২৩ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে। পদ্মা বহুমুখী সেতু হল একটি দ্বি-স্তরের স্টিল ট্রাস সেতু যার উপরের স্তরে একটি চার লেনের মহাসড়ক এবং নীচের স্তরে একটি একক-ট্র্যাক রেলপথ রয়েছে, যা পদ্মা রেল লিঙ্ক প্রকল্পের সাথে সংযুক্ত হবে। পদ্মা রেল সংযোগ প্রকল্প বাংলাদেশকে ট্রান্স-এশিয়ান রেলওয়ে নেটওয়ার্কের একটি সাব-রুটে রূপান্তরিত করবে এবং দেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধিতে প্রায় 1 শতাংশ অবদান রাখবে বলে আশা করা হচ্ছে।
পদ্মা সেতুর ওভারভিউ

বাংলাদেশ সরকারের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মেগা প্রকল্প পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের প্রাক-সম্ভাব্যতা সমীক্ষা করা হয়েছিল 1996 থেকে 1999 সাল পর্যন্ত। 2003 এবং 2005। পরবর্তীতে, 2009 থেকে 2011 সালের মধ্যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, নিউজিল্যান্ড এবং অস্ট্রেলিয়া ভিত্তিক পরামর্শদাতা সংস্থা মনসেল-ইকম পদ্মা বহুমুখী সেতুর নকশা শেষ করে। যাইহোক, সেতুর তহবিল নিয়ে সংকট দেখা দিলে, বাংলাদেশ সরকার 2013 সালে নিজস্ব তহবিল দিয়ে পদ্মা সেতু নির্মাণের ঘোষণা দেয়। 2014 সালে, চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি লিমিটেডের সাথে মূল সেতু নির্মাণের একটি চুক্তি হয়। , এবং সিনোহাইড্রো কর্পোরেশন লিমিটেড নদী প্রশিক্ষণ কাজের চুক্তি পেয়েছে। ওই বছরের ডিসেম্বরে নির্মাণকাজ শুরু হয়। মূল সেতুর কাঠামোটি 41টি স্প্যানের সাহায্যে 42টি পিলারের উপর তৈরি করা হয়েছিল, 150 মিটার বিস্তৃত যা রিখটার স্কেলে নয় মাত্রার ভূমিকম্প সহ্য করতে পারে বলে আশা করা হচ্ছে। উপরের দিকে চার লেনের সড়ক সংযোগ এবং নীচে একটি একক লাইন রেল সংযোগ ছাড়াও, সেতুটি দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমে ফাইবার অপটিক্যাল কেবলের মাধ্যমে গ্যাস, বিদ্যুৎ এবং ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট নিয়ে যাবে। মূল সেতু ও ভায়াডাক্টসহ সেতুটির মোট দৈর্ঘ্য ৯ কিলোমিটারের বেশি।


মূল সেতুর জন্য 12 কিলোমিটারের বেশি অ্যাপ্রোচ রোড নির্মাণের পাশাপাশি, প্রকল্পটি সেতুর উভয় পাশে 1471 হেক্টর জমি এবং প্রায় 14 কিলোমিটার নদী প্রশিক্ষণের জন্য অধিগ্রহণ করবে। বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষ (বিবিএ) মূল সেতু, নদী প্রশিক্ষণ, উভয় পাশের এপ্রোচ রোড, সার্ভিস এরিয়া এবং জমি অধিগ্রহণ সহ সামগ্রিক কাজের তত্ত্বাবধান করে। প্রাথমিকভাবে, পদ্মা সেতু মেগাপ্রজেক্টের ব্যয় ধরা হয়েছিল 2006 সালে 10,161 কোটি টাকা এবং 2011 সালে 20,506 কোটি টাকা, যা পরে বেড়ে 30,793 কোটি টাকায় উন্নীত হয়। বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষের মতে, প্রকল্পের মূল সেতুর 95 শতাংশেরও বেশি 2021 সালের নভেম্বরের মধ্যে সম্পন্ন হয়েছে এবং কাজটি 2022 সালের জুনের মধ্যে শেষ হবে বলে আশা করা হচ্ছে। এছাড়াও, মোট 212.05 কিলোমিটার নতুন রেললাইন নির্মাণ করা হচ্ছে। বাংলাদেশ রেলওয়ে মন্ত্রণালয়ের পৃষ্ঠপোষকতায় পদ্মা সেতুর জন্য নির্মিত, যা দেশের বৃহত্তম স্থলবন্দর যশোরের সাথে ঢাকাকে সংযুক্ত করবে। ৪০ হাজার কোটি টাকার প্রকল্পের অর্থায়নের ৮৫ শতাংশ দেবে চায়না এক্সিম ব্যাংকের মাধ্যমে, আর বাকি দেবে বাংলাদেশ সরকার। যদিও রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের মতো কয়েকটি মেগা প্রকল্প আর্থিকভাবে পদ্মা সেতু প্রকল্পের চেয়ে অনেক বড়, তবে পদ্মার আর্থ-সামাজিক, ঐতিহাসিক এবং ভূ-রাজনৈতিক গুরুত্ব অন্যদের তুলনায় অনেক বেশি।

পদ্মা সেতুর প্রভাব

বিশ্বব্যাংকের প্রধান অর্থনীতিবিদ জাহিদ হোসেনের মতে, পদ্মা সেতুতে সড়ক ও রেল চলাচল চালু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষ সেতুটি থেকে উপকৃত হতে শুরু করবে। সড়কপথে ঢাকার সঙ্গে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের অধিকাংশ জেলার দূরত্ব অন্তত ১০০ কিলোমিটারে নেমে আসবে। যাত্রী ও পণ্য পরিবহনের সময় ও খরচ কমার পাশাপাশি গাড়ির রক্ষণাবেক্ষণ ও জ্বালানি খরচ অনেক কম হবে। ফলস্বরূপ, ব্যবসা এবং কৃষি সহ সমস্ত সেক্টরের লোকেরা উপকৃত হবে, যা দেশের জিডিপিকে প্রভাবিত করবে।

যোগাযোগ ও পরিবহন সুবিধা

এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) মতে, বাংলাদেশের মোট জনসংখ্যার ২৭% দক্ষিণ-পশ্চিমে বাস করে। বাংলাদেশের বরিশাল ও খুলনা থেকে ঢাকায় যাতায়াতের ক্ষেত্রে পদ্মা নদী একটি উল্লেখযোগ্য বাধা। বিবিসির একটি সূত্র জানায়, ১১ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে পদ্মা সেতুর দুই পাশে এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণের পাশাপাশি বিদ্যমান সড়কগুলোর আরও উন্নয়ন করা হয়েছে। ফলে সেতুটি চালু হলে সেখানে যাতায়াত বেড়ে যাবে ২০ গুণের বেশি। এডিবি সূত্রে জানা গেছে, পদ্মা সেতু ২০২৪ সালে প্রতিদিন গড়ে ২৪,০০০ এবং ২০৫০ সালের মধ্যে ৬৭,০০০ যানবাহন চলাচল করবে। এছাড়াও, পদ্মা সেতু মংলা বন্দর থেকে ঢাকার দূরত্ব ১০০ কিলোমিটার কমিয়ে মাত্র ১৭০ কিলোমিটারে নামিয়ে আনবে। যেখানে চট্টগ্রাম বন্দর ও ঢাকার মধ্যে বর্তমান দূরত্ব প্রায় ২৬৪ কিলোমিটার। পদ্মা সেতুর ফলে ঢাকার মংলা সমুদ্রবন্দর ও চট্টগ্রাম বন্দরের মধ্যে দূরত্ব কমবে। পণ্য পরিবহণে মংলা বন্দরের গুরুত্ব বৃদ্ধি এবং ঢাকা ও দক্ষিণের মধ্যে যোগাযোগ সহজতর হলে অনেক কর্মঘণ্টা সাশ্রয় হবে, যা দেশের অর্থনীতির প্রবৃদ্ধিকে আরও ত্বরান্বিত করবে। এছাড়াও, এডিবি অনুসারে, ট্র্যাফিক মডেলে পদ্মা সেতুর দীর্ঘমেয়াদী (31 বছর) সড়ক ব্যবহারকারীদের সুবিধা দাঁড়িয়েছে 18.512 বিলিয়ন ডলার, এবং সোশ্যাল অ্যাকাউন্টিং ম্যাট্রিক্স (SAM) অনুসারে, মোট প্রকল্পের সুবিধা অনুমান করা হয়েছিল $25 বিলিয়ন (24.993) একই সময়ে।


লেনদেন

পদ্মা সেতু উদ্বোধনের পর সারাদেশে ব্যবসা-বাণিজ্য আরও চাঙ্গা হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। বিশেষজ্ঞরা অনুমান করেছেন দক্ষিণ-পশ্চিমের 21টি জেলায়, বিশেষ করে ডাবল-ডেকার সেতু চালু হওয়ার এক বছরের মধ্যে একটি শিল্প বিপ্লব। একটি মালবাহী ট্রাকে বরিশাল বা খুলনা থেকে ঢাকা বা ঢাকা থেকে এসব এলাকায় যেতে কমপক্ষে ২ থেকে ৩ দিন সময় লাগে। সেতুটি উদ্বোধনের পর, এই সময়টি সর্বাধিক একদিনে কমিয়ে আনা হবে, যা অঞ্চলগুলির ব্যবসা কয়েক গুণ বাড়িয়ে দেবে। এছাড়াও ডেইলি স্টারের একটি সূত্র জানায়, পদ্মা সেতু রেল সংযোগ প্রকল্পের কাজ শেষ হলে ঢাকা থেকে যশোর হয়ে কলকাতার দূরত্ব অর্ধেকে নেমে আসবে এবং সময় লাগবে মাত্র ৩ থেকে ৪ ঘণ্টা, যা আরও বাড়বে। দেশের আন্তর্জাতিক বাণিজ্য। ফলে বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে একটি গুরুত্বপূর্ণ করিডোরে পরিণত হতে পারে। খুলনা চেম্বার অব কমার্সের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পদ্মা সেতু চালু হলে এই অঞ্চলটি দক্ষিণ এশিয়ায় আঞ্চলিক সংযোগে যুগান্তকারী ভূমিকা পালন করবে এবং ঢাকাকে মংলা ও পায়রা বন্দরের সঙ্গে যুক্ত করবে। বর্তমানে দেশের আন্তর্জাতিক বাণিজ্যের ৯০ শতাংশের বেশি চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে হয়। 2021 সালে, এই বন্দরের বাণিজ্যের পরিমাণ ছিল প্রায় 90 বিলিয়ন ডলার। প্রাথমিকভাবে, চট্টগ্রাম বন্দর প্রতি বছর 2 মিলিয়ন টিইইউ (টুয়েন্টি-ফুট ইকুইভালেন্ট ইউনিট) কনটেইনার হ্যান্ডেল করতে পারত, কিন্তু 2021 সালে তা বেড়ে 3.2 মিলিয়ন টিইইউ-তে উন্নীত হয়।

তবে, 2021 সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত, মংলা থেকে 20 (19,224) হাজারেরও কম কনটেইনার হ্যান্ডেল করা হয়েছিল, যা পায়রা বন্দরের ক্ষেত্রে আরও কম। এছাড়াও, সেতুটি চালু হওয়ার পরে, সহজ যাতায়াতের পাশাপাশি এটি গ্যাস, বিদ্যুৎ এবং ইন্টারনেট পরিষেবার ব্যয়ও হ্রাস করবে, যা এই অঞ্চলে বিদ্যমান বাণিজ্যকে প্রসারিত করবে।


আঞ্চলিক শিল্প বিপ্লব

পদ্মা সেতু দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের অর্থনীতির উল্লেখযোগ্য উন্নতি ঘটাবে, যার প্রকৃষ্ট প্রমাণ বঙ্গবন্ধু সেতু, যেটিকে ঘিরে উত্তরবঙ্গে শিল্প বিপ্লব ঘটেছে। এই সেতুর ফলে উত্তরবঙ্গের অর্থনীতিতে যে পরিবর্তন হয়েছে তা বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধিতে প্রায় ২% অবদান রেখেছে। পদ্মা সেতুর ক্ষেত্রেও এ ধরনের অবদান অনুমান করা হয়েছে। অনেক বিশেষজ্ঞের মতে, যমুনার চেয়ে পদ্মা সেতুর অবদান বেশি হবে। বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, পদ্মা সেতুর পথ ধরে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে ম্যানুফ্যাকচারিং ব্যবসা, আরএমজি, অ্যাসেম্বলিং প্লান্ট, স্টোরেজ সুবিধাসহ অনেক ছোট-বড় শিল্প গড়ে উঠবে। এডিবির হিসাব অনুযায়ী, এই সেতুকে ঘিরে প্রত্যক্ষ বিনিয়োগ আঞ্চলিক অর্থনীতিকে চাঙ্গা করবে। জাইকার হিসাব অনুযায়ী, ঢাকা থেকে ভ্রমণের সময় 10 শতাংশ হ্রাস জেলা অর্থনীতিকে 5.5 শতাংশে উন্নীত করবে, যা এই অঞ্চলের বার্ষিক জিডিপি প্রবৃদ্ধি 1.7 শতাংশ বৃদ্ধি করবে। একটি বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার মতে, সেতুটি দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের বহুজাতিক যোগাযোগ, বাণিজ্য, পর্যটন এবং শিল্প সহ অনেক বড় সেক্টরের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্র হবে। উপরন্তু, দক্ষিণ-পশ্চিমে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড ইতিমধ্যে সেতুর চারপাশে বৃদ্ধি পেয়েছে, ব্যাপক স্তরের শিল্পায়ন চলছে। এই প্রেক্ষাপটে, বরিশালে জমি বিক্রির হার 2019 সালের তুলনায় 2020 সালে দ্বিগুণ হয়েছে। মহাসড়কের পাশের জমিও আগের চেয়ে তিনগুণ বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে। লাইট ক্যাসেল অনুযায়ী, পদ্মা সেতুর আশেপাশে মেগা কারখানা, হাসপাতাল, বিশ্ববিদ্যালয়, আবাসন শিল্প এবং ছোট ব্যবসার দ্রুত বিকাশ ঘটবে।

আর্থ-সামাজিক বৃদ্ধি

সিপিডির একটি সূত্র জানায়, খুলনা-বরিশাল অঞ্চলে দারিদ্র্যের হার জাতীয় গড়ের চেয়ে অন্তত ১০ শতাংশ বেশি। পদ্মা সেতু নির্মাণের ফলে আঞ্চলিক পর্যায়ে দারিদ্র্যের হার ১ দশমিক ০১ শতাংশ এবং জাতীয় পর্যায়ে ০ দশমিক ৮৪ শতাংশ হ্রাস পাবে। ব্যয়বহুল ও সময়সাপেক্ষ পরিবহন ব্যবস্থার কারণে এসব এলাকার কৃষকরা তাদের ফসলের ন্যায্য মূল্য পাচ্ছেন না। সেতুটি সম্পন্ন হলে ফরিদপুরের খুলনা বিভাগের পাট ও মাছের পাশাপাশি বরিশালের কৃষিপণ্য দ্রুত দেশে-বিদেশে পরিবহন করা যাবে। এর ফলে কৃষক ও উৎপাদকরা তাদের উৎপাদিত পণ্যের ভালো দাম পাবে, যা তাদের জীবনযাত্রার মান বাড়াবে। বিশ্বব্যাংকের এক গবেষণায় বলা হয়েছে, পদ্মা সেতুর মাধ্যমে বাংলাদেশের প্রায় তিন কোটি মানুষ সরাসরি উপকৃত হবে।

এই সেতুর ফলে যোগাযোগ, যাতায়াত, কৃষি, শিল্পায়ন, কর্মসংস্থান বৃদ্ধি পাবে, যা এ অঞ্চলের মানুষের জীবনযাত্রার মান উন্নত করবে। পদ্মা সেতুকে ঘিরে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের রিয়েল এস্টেট খাতও চাঙ্গা হয়েছে। ফলে ভবিষ্যতে এ অঞ্চলের মানুষ আগের চেয়ে কম খরচে গ্যাস, বিদ্যুৎ ও ইন্টারনেট সেবা পাবে বলে আশা করা হচ্ছে। ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সুবিধা পাওয়ায় এসব এলাকায় ডিজিটালাইজেশন সহজ হবে। ফ্রিল্যান্সিংয়ের মাধ্যমে আরও কর্মসংস্থান সৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে, যা এই অঞ্চলের মানুষের আর্থ-সামাজিক মর্যাদা বাড়াতে সাহায্য করবে। আর্থিকভাবে স্বচ্ছল হওয়ায় এলাকার শিক্ষা ব্যবস্থার উন্নতির পাশাপাশি পদ্মার দুই পাড়ের মানুষের মধ্যে সাংস্কৃতিক সংহতি বাড়বে। টিবিএসের একটি সূত্র অনুসারে, সেতুটি চালু হওয়ার আসন্ন পাঁচ বছরের মধ্যে নিয়োগকর্তারা প্রায় 1 মিলিয়ন বৃদ্ধি পাবে, যা আগামী দশ বছরে 30 থেকে 40 মিলিয়নে পৌঁছাবে। এ ছাড়া আঞ্চলিক পর্যায়ে সরকার দক্ষ জনশক্তি তৈরিতে বেশ কিছু পদক্ষেপ নিয়েছে। এ ছাড়া দীর্ঘদিন যাবৎ এ অঞ্চলের মানুষ ঢাকার উন্নত চিকিৎসা সেবা থেকে প্রায় বঞ্চিত ছিল যাতায়াত ব্যবস্থার দুর্বলতার কারণে। পদ্মা সেতু নির্মাণ ও যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নের পর এ অঞ্চলের মানুষ দ্রুত ঢাকায় যাতায়াত করতে পারবে এবং উন্নত চিকিৎসা সেবা পেতে পারবে।

জিডিপি প্রবৃদ্ধি

দ্মা সেতু কেন্দ্রিক পরিবহন, বাণিজ্য এবং আঞ্চলিক শিল্প বিপ্লবের অর্থনৈতিক আউটপুট জিডিপি প্রবৃদ্ধির সাথে দেশের সামগ্রিক অর্থনীতিতে প্রভাব ফেলবে। ঢাকা ট্রিবিউনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পদ্মা বহুমুখী সেতু চালু হলে তা দেশের জিডিপিতে বছরে প্রায় ১.৩ থেকে ২ শতাংশ অবদান রাখবে বলে আশা করা হচ্ছে। একই সঙ্গে পদ্মা সেতু রেল সংযোগ প্রকল্পের কাজ শেষ হলে জিডিপি আরও ১ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে। বর্তমান ভিত্তি বছর অনুসারে, ব্র্যাকের একটি সমীক্ষায় 31 বছরে জিডিপিতে 5 শতাংশ অবদান অনুমান করা হয়েছে। তবে সেতুটি সম্পন্ন হলে তা দেশের জিডিপিতে ১ দশমিক ২ শতাংশ অবদান রাখবে। IMF-এর পূর্বাভাস অনুযায়ী, 2022 সালে জিডিপি বৃদ্ধির র‌্যাঙ্কিংয়ে বাংলাদেশের স্থান বিশ্বে 20তম। 2026 সালে, বাংলাদেশ এই র‌্যাঙ্কিংয়ে 3য় অবস্থানে পৌঁছাবে, যার অন্যতম অবদানকারী হবে পদ্মা সেতু।

পদ্মা সেতুকে এখন আর শুধু স্টিলের তৈরি সেতু বলা যাবে না। তবুও, এটি বাংলাদেশের সক্ষমতা, অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি এবং বাংলাদেশী জনসংখ্যার আবেগের কেন্দ্র হয়ে উঠেছে। বাংলাদেশে নিযুক্ত ব্রিটিশ হাইকমিশনার মিঃ রবার্ট চ্যাটারটন ডিকসন পদ্মা সেতুকে বাংলাদেশের "উল্লেখযোগ্য অর্জন" বলে বর্ণনা করেছেন। বাংলাদেশ সরকার 2022 সালের জুন মাসে পদ্মা সেতু চালু করার ঘোষণা দেয় এবং একই বছর 16 ডিসেম্বর ঢাকা থেকে ভাঙ্গা পর্যন্ত পদ্মা রেল সংযোগ চালু করার ঘোষণা দেয়।
 

Recent Resources & Article

albd-logo